পুলিশকে এড়িয়ে চলছে মিন্নি

বরগুনা সদরে রিফাত শরীফকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা মামলায় স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির কাছে গিয়েছে পুলিশ।তবে তিনি পুলিশের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি! রিফাতকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বললেও এখন পর্যন্ত মামলা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। পুলিশকে তিনবার ফিরিয়ে দিয়েছেন মিন্নি।

সাংবাদিকদের সাথে কথা বললেও এখনো পর্যন্ত পুলিশের সাথে স্বামী হত্যার বিষয়ে কোনো কথা বলেননি মিন্নি

শনিবার (২৯ জুন) এ হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) হুমায়ুন কবির মিন্নির সঙ্গে ঘটনার বিষয়ে কিছু সুনির্দিষ্ট বিষয়ে আলাপ করতে রিফাতের বাড়িতে যান (শ্বশুরবাড়ি) যান। সেখানে মিন্নি উপস্থিত থাকলেও অসুস্থ বোধ করায় তিনি পুলিশের সঙ্গে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

মানসিকভাবে বিপর্যস্ত মিন্নিকে কথা বলার জন্য চাপ দেয়নি পুলিশ। দ্বিতীয় দফায় রিফাতের বাড়িতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে তিনি (মিন্নি) নিজের বাবার বাসায় চলে গেছে।

শনিবার বিকেলে মিন্নির বাবার বাড়িতে যায় পুলিশ। প্রথমবার সেখানে গেলে অসুস্থতার কথা বলে তিনি পুলিশের সঙ্গে কথা বলেননি। তৃতীয়বার গেলেও কোনো কথা বলেননি তিনি। বাড়ির ভেতর থেকে নিজের অসুস্থতার কথা জানিয়েছেন তিনি। এরপর আর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের চেষ্টা করেনি পুলিশ।

এ বিষয়ে পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) মো. সোহেল রানা সাংবাদিকদের বলেন, হত্যার ঘটনার তদন্ত চলছে। যারা এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত তাদের গ্রেফতার করতে অভিযান চলছে। তদন্তের পরই হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনাকারী ও জড়িতদের বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে প্রকাশ্যে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয় রিফাত শরীফকে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে সেই খুনের ভিডিও অল্প সময়ের মধ্যেই ভাইরাল হয়। ভিডিওতে দেখা যায়, স্বামীকে বাঁচাতে প্রাণপনে লড়ে যাচ্ছেন স্ত্রী। গুরুতর অবস্থায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিফাতের মৃত্যু হয়।

মিন্নি নিজেকে রিফাতের প্রথম স্ত্রী বললেও অভিযুক্ত নয়ন বন্ডের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল বলে সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেছে কাজী মো. আনিসুর রহমান ভূঁইয়া। তিনি বরগুনা পৌরসভার ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নিকাহ রেজিস্টার করেন।

এ ঘটনার পরদিন রিফাতের স্ত্রী মিন্নি ও নয়নকে (নয়ন বন্ড) নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের পোস্ট দিতে থাকে। অনেকে হত্যাকাণ্ডের জন্য মিন্নিকে দায়ী করছেন।

কাজী দাবি করেন, নয়ন বন্ড ও আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির বিয়ের প্রথম সাক্ষী রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের দ্বিতীয় আসামি বাকিবুল হাসান রিফাত ওরফে রিফাত ফরাজি। গত বছরের ১৫ অক্টোবর আসরের নামাজের পর তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ের দেনমোহর হয়েছিল ৫ লাখ টাকা। তবে দেনমোহরের কোনো নগদ পরিশোধ ছিল না।

নয়নের মা সাজেদা বেগমের দাবি, নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা আক্তার মিন্নির সাবেক স্বামী তার ছেলে নয়ন। তিনি বলেন, প্রায় সাত মাস পূর্বে আয়শা আক্তার মিন্নির সাথে তার ছেলে নয়নের বিয়ে হয়। বিয়ের পরপরই নিজেদের মধ্যে কলহ দেখা দিলে মিন্নি তার ছেলেকে ডিভোর্স দেয়। 

এদিকে শুক্রবার থেকে মিন্নির শ্বশুরবাড়ি ও বাবার বাড়িতে পুলিশ মোতায়েন করা করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, মিন্নির নিরাপত্তার জন্য তার বাড়ির বাইরে পুলিশ রাখা হয়েছে।

সূত্র : জাগো নিউজ

Show More
Back to top button
Close